জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত হেফাজত নেতাদের থে‌কে বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

joybd24joybd24
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  02:48 AM, 22 June 2021

সম্প্রতি গ্রেফতার হওয়া হেফাজতে ইসলামের নেতাদের জিজ্ঞাসাবাদে একের পর এক বিস্ফোরক তথ্য বেরিয়ে আসছে। কোন মাহফিলে কে ওয়াজ করবেন, সেটাও হেফাজতে ইসলামের নেতাদের একটি অংশ নিয়ন্ত্রণ করতেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এই তথ্য দিয়েছেন গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম।
গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, রাবেতাতুল ওয়ায়েজীন নামের এই সংগঠনটি বেশ তৎপর। হেফাজতের উগ্রপন্থি নেতারা এর নেতৃত্ব দিচ্ছে। কোথাও কোন ওয়াজ মাহফিল করতে হলে তাদের মাধ্যমে আসতে আয়োজকদের বাধ্য করা হয়।
যুগ্ম কমিশনার জানান, হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক ‘রাবেতাতুল ওয়ায়েজীন’র নেতৃত্বে ছিলেন। আগে শিশু বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানী এই সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন না, সম্প্রতি তাকে যুক্ত করা হয়েছে।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে তাণ্ডবের ঘটনায় সম্প্রতি মামুনুল হকসহ হেফাজতের বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

হেফাজতের বিরুদ্ধে করা মামলাগুলোর প্রায় অর্ধশতটি তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। তদন্ত করে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য দিচ্ছেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। তারা বলছেন, হেফাজত বড় ধরনের অপপরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছিল, যা দৃশ্যত এতদিন অজানা ছিল।

মাহবুব আলম বলেন, সম্প্রতি গ্রেফতার হওয়া হেফাজত নেতাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। পাকিস্তানের ‘তেহেরিক-ই-লাব্বায়িক’ নামের সংগঠনের আদলে তারা হেফাজতে ইসলামী বাংলাদেশকে গঠন করে পাকিস্তান বা আফগানিস্তানের মতো এদেশকে গড়ে তুলতে চায়। যার পেছনে জামাত-শিবির রয়েছে। শনিবার (২৪ এপ্রিল) গ্রেপ্তার হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির আহমদ আবদুল কাদের ইসলামী ছাত্রশিবিরের একজন সাবেক সভাপতি। হেফাজত ইসলামীর অধিকাংশই জামায়াত-শিবিরের সাথে জড়িত বলেও জানান পুলিশের যুগ্ম কমিশনার।

হেফাজতে ইসলাম মাদ্রাসার শিশুদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে বলেও উল্লেখ করেন মাহবুব। তিনি বলেন, সংগঠনটির নেতারা নিরীহ শিশু ছাত্রদের বড় পুঁজি বলে মনে করে। এই ছাত্রদের সহজেই রাস্তায় বের করে আনা যায় এবং কাজেও লাগানো যায়।