1. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক :
  2. [email protected] : rahad :
রুশ সেনার কাছে ইউক্রেনীয় বাহিনী পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছে | JoyBD24
শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
চাকরির পরীক্ষা ঢাকায়, বাস বন্ধে আসতে পারছেন না উত্তরাঞ্চলের প্রার্থীরা ‘দাবিটাবি কিছু লয়, এটা গরিবের প্যাট মারা ধর্মঘট’ আদালতের নির্দেশনা মেনে বেসিক ব্যাংকের তদন্তকাজ শেষ হবে : দুদক সচিব ওএমএসের দীর্ঘ সারি থেকে হতাশা নিয়ে ফিরছে মানুষ কর্তৃত্ববাদী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ দশ ডিসেম্বর সমাবেশ কি বুদ্ধিজীবী হত্যাকারীদের সাথে বিএনপির সংহতি প্রকাশ : প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর ১০ ডিসেম্বর ঢাকার বিভাগীয় গণসমাবেশকে নিয়ে বেসামাল অবৈধ সরকার : রিজভী হাওয়া ভবন থেকে পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনা হবে : ওবায়দুল কাদের ডায়াবেটিস রোগীরা কিডনির সুস্থতায় মেনে চলুন ৬ টিপস ক্যামেরুনের বিপক্ষে মাঠে নামা নি‌য়ে শংকা নে‌ইমা‌রের

রুশ সেনার কাছে ইউক্রেনীয় বাহিনী পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছে

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, ২০২২

ডনবাসে রুশ সেনার কাছে যে ইউক্রেনীয় বাহিনী পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছে তা এখন স্বীকার করতে বাধ্য হচ্ছে পশ্চিমারাও। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিপুল অস্ত্র ও অর্থ সমর্থন সত্ত্বেও রাশিয়াকে মোকাবেলায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে কিয়েভ সরকার।

বুধবার রুশ সেনা লুহানস্কের শেষ দুটি বড় শহর সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লাইসিচানস্কের বেশিরভাগ অংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সেখানকার প্রতিরক্ষায় থাকা কিয়েভের বাহিনীকে ঘিরে ফেলেছে। শহরদুটি সম্পূর্ণ মুক্ত হতে এত সময় লাগার কারণ হচ্ছে সেখানে থাকা বেসামরিক নাগরিকদের মানব ঢাল হিসাবে ব্যবহার করছে ইউক্রেনের সেনারা। তাদের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ধীরে ধীরে অগ্রসর হচ্ছে রুশ সেনা। যুদ্ধবিধ্বস্ত শহরটি ছেড়ে পালাচ্ছে ইউক্রেনীয় সেনারা। যারা এখনো থেকে গিয়েছে, তাদের সরবরাহ লাইন বিচ্ছিন্ন করে ঘিরে রেখেছে রুশ সেনা। কয়েক সপ্তাহ ধরে, রাশিয়ানরা ট্যাঙ্ক এবং সৈন্য নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার আগে ইউক্রেনীয় বাহিনীর উপর কামান ও রকেট নিক্ষেপ এবং গুলি করেই সন্তুষ্ট ছিল। লুহানস্কের আঞ্চলিক গভর্নর সেরহি হাইদাই স্বীকার করেছেন যে, রাশিয়ানরা তিনটি কৌশলগত গ্রাম দখল করার সাথে সাথে এই কৌশলটি বুধবার একটি আপাত অগ্রগতিতে পরিণত হয়েছে।

গ্রামগুলো ছোট হলেও, কয়েকদিনের মধ্যে তাদের পতন ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় একটি উল্লেখযোগ্য লঙ্ঘনের পরিমাণ, যা রাশিয়ান বাহিনীকে লিসিচানস্কের দোরগোড়ায় নিয়ে আসে এবং শহরে সরবরাহের পথ কমে যাওয়াকে হুমকি দেয়। ‘এখানে আশ্চর্যজনক দিকটি হল যে ইউক্রেন রাশিয়ান বাহিনীকে শহরটির কাছাকাছি ইঞ্চি হিসাবে শক্তিশালী করার জন্য বেছে নিয়েছে,’ মাইকেল কফম্যান বলেছেন, ভার্জিনিয়ায় একটি গবেষণা গ্রুপ সিএনএ-তে রাশিয়ার অধ্যয়নের পরিচালক, ‘উভয় শহর, সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ক, নিকটবর্তী মেয়াদে পতন হতে পারে।’

এটি রাশিয়ার জন্য লুহানস্ক এবং প্রতিবেশী ডোনেৎস্ক প্রদেশ দখল করার পথ খুলে দিতে পারে, যা সম্মিলিতভাবে ডনবাস নামে পরিচিত। ওয়াশিংটনে অবস্থিত একটি গবেষণা গ্রুপ, ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অফ ওয়ার অনুসারে, রাশিয়ান অগ্রগতি এই অঞ্চলে ‘ইউক্রেনীয় প্রতিরক্ষার জন্য একটি স্পষ্ট ধাক্কা’ ছিল, যদিও এটি একটি বিস্তৃত পতনের চিহ্ন নয়। ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা বলছেন যে, মারিউপোলে সপ্তাহ ধরে থাকা রক্ষকদের মতো, যোদ্ধারা সিভিয়েরোডোনেৎস্কের একটি রাসায়নিক কারখানায় আশ্রয় নিয়েছে, সাথে অজানা সংখ্যক বেসামরিক নাগরিকও রয়েছে। ফলে, সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেয়ার জন্য রাশিয়ার কয়েক দিন বা সপ্তাহ লাগতে পারে। সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2012 joybd24
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Joybd24