১১ টি মাদ্রাসার উপর নজরদারি বা‌ড়ি‌য়ে‌ছেন পু‌লিশ।

জয়‌বি‌ডিজয়‌বি‌ডি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  08:57 PM, 06 May 2021

হেফাজতের ডাকা হরতালের মূল উদ্দেশ্যই ছিল তাণ্ডব চালিয়ে দেশে অস্থিরতা সৃষ্টি করা। এজন্য গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে যানবাহনে অগ্নিসংযোগ আর ভাংচুর চালাতে দায়িত্ব ভাগাভাগি করে দিয়েছিলেন বিলুপ্ত হেফাজতের সাবেক নেতা মামুনুল হকসহ কেন্দ্রীয় কয়েক নেতা। এমনকি তাণ্ডবে অংশ নিতে বিএনপি-জামায়াতের একটি অংশকেও সম্পৃক্ত করা হয়েছিল এ পরিকল্পনায়।

হেফাজ‌তের এ তান্ড‌বে ব্যবহার করা হয় হেফাজত নেতা‌ ও হেফাজত সম‌র্থিত কও‌মি মদ্রাসার ছাত্র‌দের। রিমা‌ন্ডে গ্রেফতারকৃত সা‌বেক হেফাজতে ইসলা‌মের যুগ্ম-মহাস‌চিব মামুনুল হ‌কের জবানব‌ন্দি পাওয়ার পর পু‌লিশ ১১ টি মাদ্রাসার উপর নজরদারি বা‌ড়ি‌য়ে‌ছেন।

গত এক দশকে নারায়ণগঞ্জে নিজেদের শক্তিশালী ঘাঁটি তৈরি করতেও সক্ষম হয়েছে হেফাজত। আর এক্ষেত্রে সাংগঠনিক ভিত্তি মজবুত করতে হেফাজতপন্থি ইমামদের ভূমিকা ছিল সবচেয়ে বেশি।

মসজিদে ইমামতির পাশাপাশি তারা হেফাজতের পক্ষে সমর্থন ও ফান্ড আদায়ের জন্য কাজ করতেন। পুলিশের হাতে গ্রেফতারকৃত হেফাজতের নেতারা রিমান্ডে এমন সব চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা।

আপনার মতামত লিখুন :