হিমালয়-সংলগ্ন লাদাখের বিতর্কিত প্যাংগং থে‌কে স‌রে গে‌লো চীন-ভার‌তের সৈন্যরা।

জয়‌বি‌ডিজয়‌বি‌ডি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:37 PM, 23 February 2021

হিমালয়-সংলগ্ন লাদাখের বিতর্কিত প্যাংগং লেক এলাকা – যেখানে গত জুন মাসে এক রক্তাক্ত সংঘর্ষে ভারত ও চীনের অন্তত ২৪ জন সৈন্য নিহত হয়েছিল – সেখান থেকে দু’দেশই তাদের সৈন্যদের সরিয়ে নেয়ার কাজ শেষ করেছে। ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রচার করা এক যৌথ বিবৃতিতে একথা জানানো হয়।

এই এলাকাটিতে ভারত ও চীনের সীমান্ত স্পষ্টভাবে চিহ্নিত না হওয়ায় তা দু’দেশের সৈন্যদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টির কারণ হয়ে ওঠে। প্যাংগং লেকের উত্তর ও দক্ষিণ তীরে দু’পক্ষই বিপুল পরিমাণ সৈন্য মুখোমুখি অবস্থানে মোতায়েন রেখেছিল।

ভারতের লাদাখ ও চীন-নিয়ন্ত্রিত আকসাই-চীন এলাকায় গত কয়েক মাসে দু’দেশের হাজার হাজার সৈন্য মোতায়েন হওয়ায় – যে কোন সময় সংঘাত বাধতে পারে এমন আশংকা দেখা দিয়েছিল। গত ১১ই ফেব্রুয়ারি ভারত ও চীন লাদাখের প্যাংগং লেক এলাকা থেকে দু’দেশই তাদের সৈন্যদের সরিয়ে নেবার ইচ্ছের কথা ঘোষণা করে। এর পর থেকে সৈন্য সরিয়ে নেবার কাজ চলছিল।

এর পরের কয়েকদিনে ভারত ও চীনের উর্ধতন সামরিক কম্যান্ডারদের মধ্যে বেশ কয়েক বার বৈঠক হয়। এ সময় চীন প্রথমবারের মত স্বীকার করে যে জুন মাসের সংঘর্ষে তাদের চারজন সৈন্য নিহত হয়েছিল। ভারত ও চীনের মধ্যে গত বহু দশক ধরে সীমান্ত নিয়ে উত্তেজনা চলছে এবং ১৯৬২ সালে তাদের মধ্যে যুদ্ধও হয়েছে।

দু’দেশের মধ্যে মোট ২,১০০ মাইল সীমান্ত রয়েছে – যা বহু জা্য়গাতেই সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত নয়। দু’দেশই এখন বলছে যে তারা দু’দেশের দীর্ঘ সীমান্তের অন্য এলাকাগুলোতেও শান্তি বজায় রাখার জন্য কাজ করবে।

জুনের সংঘর্ষে চীনা সৈন্যও নিহত হয়েছিল -স্বীকার করলো বেজিং।

গত সপ্তাহে গালওয়ান উপত্যকায় চীন ও ভারতের সৈন্যদের মধ্যেকার জুন মাসের সংঘর্ষের একটি ভিডিও প্রকাশ করে চীনা কর্তৃপক্ষ। শুক্রবারই প্রথমবারের মত চীন স্বীকার করে যে ওই ঘটনায় তাদের চারজন সৈন্য নিহত হয়েছিল।

চীনা রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যমে বলা হয় “বিদেশী সৈন্যদের সাথে লড়াই করার সময়” তাদের সৈন্যরা নিহত হয় – যারা সীমান্ত পেরিয়ে চীনের ভুখণ্ডে ঢুকেছিল। ভারত অবশ্য দাবি করে যে চীনা পক্ষে নিহত সৈন্যের সংখ্যা আরো বেশি।

গালওয়ান উপত্যকার ওই রক্তাক্ত সংঘাতে ২০ জন ভারতীয় সৈন্য নিহত হয়েছিল। জানা যায় যে দুদেশের সৈন্যদের মধ্যে হাতাহাতি লড়াই হয় এবং পাথর ও পেরেক বসানো লাঠি ব্যবহার করা হয়। সীমান্তের ওই এলাকায় দু’দেশের সৈন্যদের মধ্যে গত ৪৫ বছরে এটাই ছিল প্রথম মারাত্মক সংঘর্ষের ঘটনা।

এ বছর জানুয়ারি মাসে উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় সিকিম সীমান্তেও দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে আরো একদফা সংঘর্ষ হয়।

আপনার মতামত লিখুন :