সউদী যুবরাজ ফ্রান্সে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল প্রাসাদে অবস্থান করছেন

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:45 PM, 29 July 2022

প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁর সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য ফ্রান্সে তার সফরের সময় সউদী যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান একটি বিলাসবহুল প্রাসাদে অবস্থান করছেন যাকে তিনি ‘বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বাড়ি’ বলে অভিহিত করেন যখন তিনি ২০১৫ সালে এটি কিনেছিলেন।
প্যারিসের বাইরে লুভেসিয়েনেস-এর শাতু চতুর্দশ লুই হল একটি নবনির্মিত প্রাসাদ যা একসময় ফরাসি রাজপরিবারের আসন, ভার্সাইয়ের নিকটবর্তী প্রাসাদের অসামান্য ঐশ্বর্যকে অনুকরণ করার উদ্দেশে তৈরি করা হয়েছে।
৭ হাজার বর্গমিটারের সম্পত্তিটি ২০১৫ সালে একজন অপ্রকাশিত ক্রেতা ২৭ কোটি ৫০ লাখ ইউরো (সেই সময়ে ৩০ কোটি ডলার বা বাংলাদেশি ২ হাজার ৮৪২ কোটি টাকা) দিয়ে কিনেছিল, যাকে ফরচুন ম্যাগাজিন ‘বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বাড়ি’ বলে অভিহিত করেছিল। নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, দুই বছর পর মোহাম্মদ বিন সালমান (৩৬) শেল কোম্পানির একটি সিরিজের মাধ্যমে চ‚ড়ান্ত মালিক।
স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তারা এএফপিকে নিশ্চিত করেছেন যে, সউদী সিংহাসনের উত্তরাধিকারী বৃহস্পতিবার পরে ম্যাখোঁর সাথে তার নৈশভোজের আগে সম্পত্তিতে থাকবেন।
ঘেরের প্রাচীরের বাইরে ইউনিফর্ম পরা নিরাপত্তাকর্মীরা প্রবেশদ্বার পাহারা দিচ্ছেন এবং ছয়টি গাড়িসহ বিশাল পুলিশ উপস্থিতি সাংবাদিকরা দেখেছেন।
ফ্রান্সের সমালোচকরা অনুপযুক্ত বলে মনে করছেন এমন আলোচনার জন্য ম্যাখোঁ এবং বিন সালমান বৃহস্পতিবার পরে আরো বিনয়ী এলিসি প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে মিলিত হবেন। মার্কিন গোয়েন্দারা রায় দিয়েছে যে, বিন সালমান ২০১৮ সালে ইস্তাম্বুলের সউদী কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে ভয়ঙ্কর হত্যা এবং টুকরো টুকরো করার অনুমোদন দিয়েছিলেন। কিন্তু চার বছর পর একটি আন্তর্জাতিক পরীয়া হিসেবে পশ্চিমা নেতারা আবারও রাজপুত্রের সাথে দরবার করছেন, কারণ তারা জরুরিভাবে হারিয়ে যাওয়া রাশিয়ান উৎপাদন প্রতিস্থাপনের জন্য নতুন জ্বালানি সরবরাহ খুঁজছেন।


একটি যুগান্তকারী উন্নয়নে শাতু চতুর্দশ লুই তৈরি করেছিলেন খাশোগির চাচাতো ভাই ইমাদ খাশোগি যিনি ফ্রান্সে একটি বিলাসবহুল রিয়েল এস্টেট ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি চালান।
প্রাসাদটিতে একটি নাইটক্লাব, সোনার পাতার ঝর্ণা এবং সিনেমার পাশাপাশি পরিখায় একটি পানির নিচের কাচের ঘর রয়েছে যা সাদা চামড়ার সোফাসহ একটি বিশাল অ্যাকোয়ারিয়ামের মতো।
বুলডোজার দিয়ে ১৯ শতকের একটি দুর্গ ভেঙে ফেলার পর ২০০৯ সালে প্যালেস চতুর্দশ লুই নির্মিত হয়েছিল।
সউদী আরবের প্রধান মধ্যস্বত্বভোগী হিসেবে আবির্ভ‚ত হওয়ার পর থেকে বিন সালমানের অত্যধিক ব্যয় বারবার শিরোনাম হয়েছে।
বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সউদের পুত্র ২০১৫ সালে ৫০ কোটি ডলারের একটি ইয়ট কিনেছিলেন এবং ২০১৭ সালে লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির একটি ৪৫ কোটি ডলারের পেইন্টিংয়ের রহস্যময় ক্রেতা বলেও জানা গেছে। শেষ ক্রয় আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। সূত্র : এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।