০৫:২৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রোহিঙ্গাদের বর্তমান পরিস্থিতিতে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া নিরাপদ নয়: মার্কিন রাষ্ট্রদূত।

বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের বর্তমান পরিস্থিতিতে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া নিরাপদ নয় বলে মন্তব্য করেছে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস। একই সঙ্গে মিয়ানমারের পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

শুক্রবার (২৫ আগস্ট) ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের এক বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়েছে। ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংসতা, ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ছয় বছর পূর্তি উপলক্ষে দূতাবাসের ওয়েবসাইটে ওই বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে।

‘গণহত্যার বর্ষপূর্তি’ শিরোনামে ওই বিবৃতিতে বাংলাদেশের প্রশংসা করে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যার জেরে সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা নিজ দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছিল। তাদের প্রতি সহানুভূতি ও মানবতার হাত বাড়িয়েছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশ প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার প্রতি আতিথেয়তা অব্যাহত রেখেছে।

বাংলাদেশ ও এই অঞ্চলের অন্যান্য দেশে আশ্রয় খুঁজে ফেরা রোহিঙ্গারা দীর্ঘকাল ধরে ভুগছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, মর্যাদার সঙ্গে নিরাপদে বাড়ি ফিরে যাওয়া, সপরিবার শান্তিতে বসবাস করা এবং অর্থ ও উদ্দেশ্যপূর্ণ জীবনযাপনের সুযোগ পাওয়া তাদের অধিকার। সে লক্ষ্যে নিষেধাজ্ঞা জারি, আন্তর্জাতিক চাপ প্রয়োগ এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে এ সংকটের সমাধান বের করতে, ভুক্তভোগী ব্যক্তিদের ন্যায়বিচারের ব্যবস্থা করতে ও নৃশংসতার সঙ্গে জড়িত অপরাধীদের জবাবদিহির আওতায় আনতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের অবস্থার উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিশ্বের অন্যতম ঝুঁকিপূর্ণ এবং প্রান্তিক এই জনগোষ্ঠীর প্রতি মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানাই। আমাদের অবশ্যই বাংলাদেশ সরকার এবং রোহিঙ্গাদের আশ্রয়দানকারী বাংলাদেশি জনগোষ্ঠীর প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখতে হবে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া অনিরাপদ উল্লেখ করে বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, তাই আমরা আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপায়ে পুনর্বাসনের মাধ্যমে দায়িত্ব ভাগ করে নিয়ে রোহিঙ্গাদের দুর্দশার সর্বাঙ্গীণ সমাধানে অবদান রাখছি। আন্তর্জাতিক পুনর্বাসনপ্রক্রিয়ায় অবদান রাখা অন্য দেশগুলোর উদারতাকে আমরা সাধুবাদ জানাই। আশা করি, পুনর্বাসন দেওয়া দেশগুলোর বাইরেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টায় যোগ দেবে। ২০০৯ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশসহ এই অঞ্চল থেকে প্রায় ১৩ হাজার রোহিঙ্গাকে স্বাগত জানিয়েছে।

Tag :
About Author Information

ভারতে ৩শ’ রুপির গয়না ৬ কোটিতে বিক্রি করে মার্কিন নারীর সঙ্গে প্রতারণা।

রোহিঙ্গাদের বর্তমান পরিস্থিতিতে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া নিরাপদ নয়: মার্কিন রাষ্ট্রদূত।

Update Time : ০৫:৩২:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৬ অগাস্ট ২০২৩

বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের বর্তমান পরিস্থিতিতে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া নিরাপদ নয় বলে মন্তব্য করেছে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস। একই সঙ্গে মিয়ানমারের পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

শুক্রবার (২৫ আগস্ট) ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের এক বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়েছে। ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংসতা, ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ছয় বছর পূর্তি উপলক্ষে দূতাবাসের ওয়েবসাইটে ওই বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে।

‘গণহত্যার বর্ষপূর্তি’ শিরোনামে ওই বিবৃতিতে বাংলাদেশের প্রশংসা করে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যার জেরে সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা নিজ দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছিল। তাদের প্রতি সহানুভূতি ও মানবতার হাত বাড়িয়েছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশ প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার প্রতি আতিথেয়তা অব্যাহত রেখেছে।

বাংলাদেশ ও এই অঞ্চলের অন্যান্য দেশে আশ্রয় খুঁজে ফেরা রোহিঙ্গারা দীর্ঘকাল ধরে ভুগছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, মর্যাদার সঙ্গে নিরাপদে বাড়ি ফিরে যাওয়া, সপরিবার শান্তিতে বসবাস করা এবং অর্থ ও উদ্দেশ্যপূর্ণ জীবনযাপনের সুযোগ পাওয়া তাদের অধিকার। সে লক্ষ্যে নিষেধাজ্ঞা জারি, আন্তর্জাতিক চাপ প্রয়োগ এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে এ সংকটের সমাধান বের করতে, ভুক্তভোগী ব্যক্তিদের ন্যায়বিচারের ব্যবস্থা করতে ও নৃশংসতার সঙ্গে জড়িত অপরাধীদের জবাবদিহির আওতায় আনতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের অবস্থার উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিশ্বের অন্যতম ঝুঁকিপূর্ণ এবং প্রান্তিক এই জনগোষ্ঠীর প্রতি মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানাই। আমাদের অবশ্যই বাংলাদেশ সরকার এবং রোহিঙ্গাদের আশ্রয়দানকারী বাংলাদেশি জনগোষ্ঠীর প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখতে হবে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া অনিরাপদ উল্লেখ করে বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, তাই আমরা আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপায়ে পুনর্বাসনের মাধ্যমে দায়িত্ব ভাগ করে নিয়ে রোহিঙ্গাদের দুর্দশার সর্বাঙ্গীণ সমাধানে অবদান রাখছি। আন্তর্জাতিক পুনর্বাসনপ্রক্রিয়ায় অবদান রাখা অন্য দেশগুলোর উদারতাকে আমরা সাধুবাদ জানাই। আশা করি, পুনর্বাসন দেওয়া দেশগুলোর বাইরেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টায় যোগ দেবে। ২০০৯ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশসহ এই অঞ্চল থেকে প্রায় ১৩ হাজার রোহিঙ্গাকে স্বাগত জানিয়েছে।