রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, দ্রুত ও টেকসই প্রত্যাবাসন চায় ভারত- ভারতের হাইকমিশনার।

জয়‌বি‌ডিজয়‌বি‌ডি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:10 PM, 20 December 2020

‌রো‌হিঙ্গা প্রত্যাবর্ত‌নের বিষ‌য়ে এই প্রথম ভারত তার সরাস‌রি প্র‌তি‌ক্রিয়া ব্যক্ত কর‌লো। নিরাপত্তা প‌রিষ‌দে রো‌হিঙ্গা প্রত্যাবর্ত‌নের বিষ‌য়ে ভারত হ্যাঁ না কোন ভোট না দি‌লেও আজ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী রো‌হিঙ্গা সমস্যা‌টির টেকসই সমাধা‌নের বিষ‌য়ে ভার‌তের ইচ্ছার বিষয়‌টি স্পষ্ঠ কর‌লেন।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী আজ রোববার দুপুরে চট্টগ্রামের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে রো‌হিঙ্গা সমস্যা‌টির টেকসই সমাধা‌নের বিষ‌য়ে ভার‌তের ইচ্ছার কথা জানান।

হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেছেন, “রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশ ও ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি এক। ভারত রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও টেকসই প্রত্যাবাসনের পক্ষে। আজ রোববার বিকেলে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।”

সীমান্তে হত্যা সম্পর্কিত বিষয়ে বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেন, এসব সীমান্ত হত্যার ঘটনা রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টার মধ্যে ঘটে। এসব ঘটনার ভিকটিম শুধু বাংলাদেশিরা নন, ভারতীয় বিএসএফ ও সাধারণ নাগরিকরাও অনেক সময় আহত হন।

ভারতীয় হাইকমিশনার সীমান্তে হত্যা কমিয়ে আনতে সীমান্তবর্তী এলাকার জনগণকে অর্থনৈতিকভাবে উন্নত করে তুলতে হবে বলে মন্তব্য করেন।

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রসঙ্গে বিক্রম বলেন, ‘এটা একদম পরিষ্কার, আমরা মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, দ্রুত ও টেকসই প্রত্যাবাসন চাই। সবক্ষেত্রে ভারতের সহযোগিতা থাকবে। তাদের ফিরিয়ে নেওয়া বাংলাদেশের সমাজ ও অর্থনীতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে ভারত ও বাংলাদেশের অবস্থানের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই।’

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে সহসভাপতি সালাউদ্দীন রেজা ও সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। আলী আব্বাস চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী জাদুঘর করার প্রস্তাব দেন হাইকমিশনারের কাছে এবং আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে খাজা বাবার ওরসে বাংলাদেশ থেকে অংশগ্রহণকারীদের ভিসা সহজ করার আহ্বান জানান।

এর আগে আজ দুপুরে চট্টগ্রামের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে ভারতীয় হাইকমিশনার চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। তিনি বলেন, ভৌগোলিক সুবিধার কারণে চট্টগ্রাম হতে পারে এ অঞ্চলের গেটওয়ে। কারণ বিশাল এক জনগোষ্ঠীর জন্য আমদানি-রপ্তানি পণ্য চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে সম্পন্ন হওয়ার ব্যাপক সুযোগ রয়েছে।

চট্টগ্রাম চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলমের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভারতের সহকারী হাইকমিশনার অনিন্দ ব্যানার্জি। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভারত-বাংলাদেশের সুসম্পর্কের কথা উল্লেখ করেন। এ সময় তিনি চলমান করোনা মহামারি প্রতিরোধে ভ্যাকসিন নিশ্চিত করতে ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটানের সম্মিলিত প্রয়াসের ওপর জোর দেন।

পরে হাইকমিশনার চট্টগ্রামের খুলশিতে ইউরোপিয়ান ক্লাবে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের বীরকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

আপনার মতামত লিখুন :