যারা বিদ্যুতের পরিবর্তে খাম্বা দিয়েছিল, তাদের মুখে বিদ্যুতের কথা বলা মানায় না।

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:13 PM, 29 July 2022

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্য শুনলে মনে হয়, ‘বানরে সংগীত গায়, শিলা জ্বলে ভাসে’।

তিনি বলেন, সংখ্যালঘু নির্যাতনের রেকর্ড এদেশে একমাত্র বিএনপির। বিএনপির শাসনামলে তারা হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর যে হামলা, নির্যাতন চালিয়েছিল তার নজির আর নেই।

‘বর্তমান সরকারের শাসনামলে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা নিরাপদ নয়’, বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে তিনি এই মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের শুক্রবার বিকেলে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের অন্তর্গত বিমানবন্দর থানার বিভিন্ন ইউনিট ও ওয়ার্ডের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে তার বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যারা বিদ্যুতের পরিবর্তে খাম্বা দিয়েছিল, তাদের মুখে বিদ্যুতের কথা বলা মানায় না।

প্রতিদিন কোনো না কোনো বিষয়ে মিথ্যাচার করা বিএনপির অভ্যাসে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনারা দেশের জন্য কি উন্নয়ন করেছেন, যা থেকে জনগণের কাছে ভোট চাইবেন।

তিনি বলেন, মানুষ উন্নয়ন ও কাজ চায়, শেখ হাসিনা উন্নয়ন ও কাজ করে যাচ্ছেন, তাই জনগণ শেখ হাসিনার ওপর খুশি, আর বিএনপির মন খারাপ।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেতার সাথে কর্মীর এবং কর্মীর সাথে জনগণের সেতু নির্মাণ করে আগামী জাতীয় নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিজয়ী হতে হবে। আওয়ামী লীগ নিজেদের জন্য রাজনীতি করে না, আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে জনগণের ভাগ্যোন্নয়নের জন্য। আগামী জাতীয় নির্বাচনের সময় বেশি দিন নেই, তাই এখন থেকেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

রাজপথে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে মোকাবেলা করার প্রস্তুতি নিতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, মানুষের সাথে ভালো আচরণ করতে হবে, তাহলে আওয়ামী লীগের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না।

উত্তরা পশ্চিম থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মনোয়ার ইসলাম চৌধুরী রবিনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি, সংসদ সদস্য মো: হাবিব হাসানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সূত্র : বাসস