মাধ্যমিকে লটারির মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রম শুরু ১৫ ডিসেম্বর থেকে।

জয়‌বি‌ডিজয়‌বি‌ডি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  05:21 PM, 12 December 2020

চলমান করোনা সংকটাবস্থার কারণে মাধ্যমিকে লটারির মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হচ্ছে চলতি মাসেই। আগামী ১৫ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে আবেদন। যা চলবে আগামী ২৭ ডিসেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি)-এর জারি করা ভর্তির বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে শনিবার (১২ ডিসেম্বর) সকালে এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশীদ আমিন সাংবাদিকদের জানান, ‘করোনা পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হওয়ায় পরীক্ষা পদ্ধতি নয়, লটারির মাধ্যমে ভর্তির বিষয়টি আগেই চূড়ান্ত হয়েছে।  তবে, ভর্তির সময় নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের সিদ্ধান্ত জানানোর কথা রয়েছে।’

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কেবল অনলাইলে ১৫ ডিসেম্বর থেকে ২৭ ডিসেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত সরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে। ৩০ ডিসেম্বর অনলাইনে লটারির মাধ্যমে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থী নির্বাচন করা হবে। সংস্থাটির ওয়েবসাইটে (https://gsa.teletalk.com.bd) বিজ্ঞপ্তিটি পাওয়া যাচ্ছে।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ঢাকা মহানগরীর ৪৪টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় তিনটি ফিডার শাখাসহ তিনটি গ্রুপে বিভক্ত থাকবে। আবেদনের সময় একজন শিক্ষার্থী একটি গ্রুপে পছন্দের ক্রমানুসারে সর্বোচ্চ পাঁচটি নির্বাচন করতে পারবে। আর সারা দেশের শিক্ষার্থীরা আবেদনের সময় প্রতিষ্ঠান নির্বাচনকালে থানাভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা পাবে। তখন প্রার্থীরা প্রাপ্যতার ভিত্তিতে পছন্দক্রম অনুযায়ী সর্বোচ্চ ৫টি বিদ্যালয় নির্বাচন করতে পারবে।

আবেদন গ্রহণের পর অনলাইনের মাধ্যমে লটারি একজন শিক্ষার্থীকে একটি বিদ্যালয় নির্বাচন করে দেওয়া হবে। এতদিন একজন শিক্ষার্থী একটি গ্রুপের একটি বিদ্যালয়কে বেছে নেওয়ার সুযোগ পেত।

ভর্তির আবেদন করতে ১১০ টাকা ফি টেলিটকের প্রি-পেইড মোবাইল থেকে এসএমএস করে পরিশোধ করা যাবে।

এর আগে গত ২৫ নভেম্বর (বুধবার) করোনা ভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এবং স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে সরকারি-বেসরকারি স্কুলে লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভর্তি হওয়ার বিষয়টি জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

ওই সময় তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন দিক বিবেচনায় চলতি বছরে রাজধানীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে ক্যাচমেন্ট এরিয়ায় (শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছাকাছি এলাকা) ৪০ শতাংশের পরিবর্তে ৫০ শতাংশ বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এতে ক্লাস্টারভিত্তিক শিক্ষার্থীরা ভর্তির লটারিতে পাঁচটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাছাই করার সুযোগ পাবে।’

করোনাভাইরাস সংক্রামণের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কওমি মাদরাসা ছাড়া কয়েক দফায় কিন্ডার গার্টেনসহ অন্যসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :