০৮:১১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজকে লক্ষ্য করে বোমা ছুড়‌লো রা‌শিয়ার নৌ‌সেনার বিমান।

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৮:২৪:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১
  • 13

রুশ নৌসেনার বিমান এসইউ-২৪ থেকে পর পর চারটে বোমা ছোড়া হল ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজকে লক্ষ্য করে। বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে কৃষ্ণসাগরে (ব্ল্যাক সি)।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়ের বিবৃতি উল্লেখ করে এক সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, কৃষ্ণসাগরে আন্তর্জাতিক জলসীমা লঙ্ঘন করেছে ব্রিটিশ নৌসেনার যুদ্ধজাহাজ। নৌসেনাকে বার বার সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু তারা শোনেনি বলে দাবি রাশয়ার। তার পরই সেই জাহাজ লক্ষ্য করে টহলদারি নৌবাহিনীর বিমান থেকে বোমা ছোড়ে রাশিয়া।

ওই বিবৃতিতে আরও দাবি করা হয়েছে, ব্রিটিশ নৌসেনার যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস ডিফেন্ডার কৃষ্ণসাগরে টহল দেওয়ার সময় ক্রিমিয়ার কেপ ফিয়োলেন্টের কাছে চলে এসেছিল। আন্তর্জাতিক সীমা লঙ্ঘনের আগে থেকেই তাদের সঙ্কেত দেওয়া হয়েছিল। একই সঙ্গে সতর্কও করা হয়।

যদিও ব্রিটেন এই ঘটনার কথা অস্বীকার করেছে। তারা পাল্টা দাবি করেছে, রুশ সেনারা মহড়া দিচ্ছিল। ব্রিটিশ জাহাজকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ার মত কোনও ঘটনা ঘটেনি। এইচএমএস ডিফেন্ডার নিয়মমাফিক টহলদারি চালাচ্ছিল। তবে কোনও জলসীমা লঙ্ঘনও করেনি ওই জাহাজ।

কৃষ্ণসাগরে রাশিয়ার আন্তর্জাতিক জলসীমায় মাঝে মধ্যেই সীমা লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটে থাকে। কিন্তু এই প্রথম কোনও বাহিনীকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ার ঘটনা ঘটল।

Tag :
About Author Information

একুশে ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজকে লক্ষ্য করে বোমা ছুড়‌লো রা‌শিয়ার নৌ‌সেনার বিমান।

Update Time : ০৮:২৪:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১

রুশ নৌসেনার বিমান এসইউ-২৪ থেকে পর পর চারটে বোমা ছোড়া হল ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজকে লক্ষ্য করে। বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে কৃষ্ণসাগরে (ব্ল্যাক সি)।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়ের বিবৃতি উল্লেখ করে এক সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, কৃষ্ণসাগরে আন্তর্জাতিক জলসীমা লঙ্ঘন করেছে ব্রিটিশ নৌসেনার যুদ্ধজাহাজ। নৌসেনাকে বার বার সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু তারা শোনেনি বলে দাবি রাশয়ার। তার পরই সেই জাহাজ লক্ষ্য করে টহলদারি নৌবাহিনীর বিমান থেকে বোমা ছোড়ে রাশিয়া।

ওই বিবৃতিতে আরও দাবি করা হয়েছে, ব্রিটিশ নৌসেনার যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস ডিফেন্ডার কৃষ্ণসাগরে টহল দেওয়ার সময় ক্রিমিয়ার কেপ ফিয়োলেন্টের কাছে চলে এসেছিল। আন্তর্জাতিক সীমা লঙ্ঘনের আগে থেকেই তাদের সঙ্কেত দেওয়া হয়েছিল। একই সঙ্গে সতর্কও করা হয়।

যদিও ব্রিটেন এই ঘটনার কথা অস্বীকার করেছে। তারা পাল্টা দাবি করেছে, রুশ সেনারা মহড়া দিচ্ছিল। ব্রিটিশ জাহাজকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ার মত কোনও ঘটনা ঘটেনি। এইচএমএস ডিফেন্ডার নিয়মমাফিক টহলদারি চালাচ্ছিল। তবে কোনও জলসীমা লঙ্ঘনও করেনি ওই জাহাজ।

কৃষ্ণসাগরে রাশিয়ার আন্তর্জাতিক জলসীমায় মাঝে মধ্যেই সীমা লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটে থাকে। কিন্তু এই প্রথম কোনও বাহিনীকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ার ঘটনা ঘটল।