০৭:১৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ ছয় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আটক

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৯:৩৫:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ জানুয়ারী ২০২৩
  • 27

বিপুল সংখ্যক আগ্নেয়াস্ত্র, গোলাবারুদ এবং মাদকদ্রব্যসহ ছয় রোহিঙ্গা ডাকাতকে আটক করেছে টেকনাফ কোস্টগার্ড। আটকদের কাছ থেকে ১৪টি আগ্নেয়াস্ত্র, ৪৮৬ রাউন্ড গোলাবারুদ ও বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) সকালে কোস্টগার্ড সদর দপ্তরের মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আব্দুর রহমান জানান।
কোস্ট গার্ড কর্মকর্তা আব্দুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ২ জানুয়ারি টেকনাফ শাহপরীরদ্বীপ সংলগ্ন নাফ নদীর মোহনায় একটি সক্রিয় অস্ত্রধারী ডাকাতদল ফিশিং বোটে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে, আনুমানিক রাত এক ঘটিকায় কোস্টগার্ড স্টেশন সেন্টমার্টিন কর্তৃক নাফ নদীর মোহনায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান চলাকালীন কোস্টগার্ডের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল তাদের বোট নিয়ে নাফ নদীর মোহনা হতে টেকনাফের দিকে দ্রুত সরে যাওয়ার চেষ্টা করতে থাকে। স্টেশন সেন্টমার্টিন কর্তৃক ডাকাত দলকে ধরতে ধাওয়া অব্যাহত রেখে কোস্ট গার্ড স্টেশন টেকনাফকে উক্ত তথ্যটি অবগত করা হয়। স্টেশন টেকনাফ হতে চৌকশ আরেকটি আভিযানিক দল বোটটির পিছু নেয় এবং ধাওয়া করলে একপর্যায়ে স্পীড বোটটি টেকনাফ থানাধীন রঙ্গিখালীর নিকটবর্তী খড়ের দ্বীপে ডাকাত সদস্যদেরকে নামিয়ে দ্রুত মায়ানমারের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাত সদস্যরা দ্বীপের বনের মধ্যে লুকিয়ে যায়।

পরবর্তীতে কোস্টগার্ড স্টেশান টেকনাফ ও সেন্টমার্টিনের আভিযানিক দল দুটি যৌথভাবে দ্বীপটি চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে। অভিযান চলাকালীন কোস্টগার্ড কর্তৃক ডাকাত দলের মূল আস্তানা ঘেরাও করে ছয়জন সশস্ত্র ডাকাত সদস্যকে আটক করা হয়। উক্ত ডাকাত সদস্যদের তথ্যমতে খড়ের দ্বীপের বনের মধ্যে চিরুণী অভিযান পরিচালনা করে অভিনব কায়দায় লুকিয়ে রাখা দুটি বিদেশী পিস্তল, তিনটি একনলা বন্দুক, দুটি এলজি, একটি শর্ট গান, ছয়টি দেশীয় তৈরী পিস্তল, ৪টি পিস্তলের ম্যাগাজিন, ৪৫০ রাউন্ড তাজা গুলি, ৩৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলির খোঁসা, চারটি রামদা, ২০ হাজার পিস ইয়াবা, ২১ বোতল বিদেশী মদ, ৫৫১ ক্যান বিয়ার, ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত সাত সেট পোশাক, একটি হ্যান্ডকাফ, একটি ল্যান্ড ফোন, চারটি বাটন মোবাইল জব্দ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, উক্ত দ্বীপটি টেকনাফ হতে দূরবর্তী, বিচ্ছিন্ন এবং জনশূণ্য হওয়ায় এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে একটি সংঘবদ্ধ চক্র দীর্ঘদিন ধরে ডাকাতি,মাদক ও মানব পাচারসহ বিভিন্ন প্রকার অপকর্ম চালিয়ে আসছিল বলে কোস্ট গার্ড সদস্যদের কাছে গোপন তথ্য ছিল। তথ্য অনুযায়ী কোস্টগার্ড স্টেশন টেকনাফ ও সেন্টমার্টিনে কর্মরত সদস্যরা যৌথভাবে ওই দ্বীপে দীর্ঘ ৯ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান পরিচালনা করে বিপুল পরিমান অস্ত্র, গোলাবারুদ ও মাদকদ্রব্যসহ ডাকাত দলের ৬ সদস্যকে আটক করতে সক্ষম হয়।

Tag :
About Author Information

ভারতে ৩শ’ রুপির গয়না ৬ কোটিতে বিক্রি করে মার্কিন নারীর সঙ্গে প্রতারণা।

বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ ছয় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আটক

Update Time : ০৯:৩৫:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ জানুয়ারী ২০২৩

বিপুল সংখ্যক আগ্নেয়াস্ত্র, গোলাবারুদ এবং মাদকদ্রব্যসহ ছয় রোহিঙ্গা ডাকাতকে আটক করেছে টেকনাফ কোস্টগার্ড। আটকদের কাছ থেকে ১৪টি আগ্নেয়াস্ত্র, ৪৮৬ রাউন্ড গোলাবারুদ ও বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) সকালে কোস্টগার্ড সদর দপ্তরের মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আব্দুর রহমান জানান।
কোস্ট গার্ড কর্মকর্তা আব্দুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ২ জানুয়ারি টেকনাফ শাহপরীরদ্বীপ সংলগ্ন নাফ নদীর মোহনায় একটি সক্রিয় অস্ত্রধারী ডাকাতদল ফিশিং বোটে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে, আনুমানিক রাত এক ঘটিকায় কোস্টগার্ড স্টেশন সেন্টমার্টিন কর্তৃক নাফ নদীর মোহনায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান চলাকালীন কোস্টগার্ডের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল তাদের বোট নিয়ে নাফ নদীর মোহনা হতে টেকনাফের দিকে দ্রুত সরে যাওয়ার চেষ্টা করতে থাকে। স্টেশন সেন্টমার্টিন কর্তৃক ডাকাত দলকে ধরতে ধাওয়া অব্যাহত রেখে কোস্ট গার্ড স্টেশন টেকনাফকে উক্ত তথ্যটি অবগত করা হয়। স্টেশন টেকনাফ হতে চৌকশ আরেকটি আভিযানিক দল বোটটির পিছু নেয় এবং ধাওয়া করলে একপর্যায়ে স্পীড বোটটি টেকনাফ থানাধীন রঙ্গিখালীর নিকটবর্তী খড়ের দ্বীপে ডাকাত সদস্যদেরকে নামিয়ে দ্রুত মায়ানমারের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাত সদস্যরা দ্বীপের বনের মধ্যে লুকিয়ে যায়।

পরবর্তীতে কোস্টগার্ড স্টেশান টেকনাফ ও সেন্টমার্টিনের আভিযানিক দল দুটি যৌথভাবে দ্বীপটি চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে। অভিযান চলাকালীন কোস্টগার্ড কর্তৃক ডাকাত দলের মূল আস্তানা ঘেরাও করে ছয়জন সশস্ত্র ডাকাত সদস্যকে আটক করা হয়। উক্ত ডাকাত সদস্যদের তথ্যমতে খড়ের দ্বীপের বনের মধ্যে চিরুণী অভিযান পরিচালনা করে অভিনব কায়দায় লুকিয়ে রাখা দুটি বিদেশী পিস্তল, তিনটি একনলা বন্দুক, দুটি এলজি, একটি শর্ট গান, ছয়টি দেশীয় তৈরী পিস্তল, ৪টি পিস্তলের ম্যাগাজিন, ৪৫০ রাউন্ড তাজা গুলি, ৩৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলির খোঁসা, চারটি রামদা, ২০ হাজার পিস ইয়াবা, ২১ বোতল বিদেশী মদ, ৫৫১ ক্যান বিয়ার, ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত সাত সেট পোশাক, একটি হ্যান্ডকাফ, একটি ল্যান্ড ফোন, চারটি বাটন মোবাইল জব্দ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, উক্ত দ্বীপটি টেকনাফ হতে দূরবর্তী, বিচ্ছিন্ন এবং জনশূণ্য হওয়ায় এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে একটি সংঘবদ্ধ চক্র দীর্ঘদিন ধরে ডাকাতি,মাদক ও মানব পাচারসহ বিভিন্ন প্রকার অপকর্ম চালিয়ে আসছিল বলে কোস্ট গার্ড সদস্যদের কাছে গোপন তথ্য ছিল। তথ্য অনুযায়ী কোস্টগার্ড স্টেশন টেকনাফ ও সেন্টমার্টিনে কর্মরত সদস্যরা যৌথভাবে ওই দ্বীপে দীর্ঘ ৯ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান পরিচালনা করে বিপুল পরিমান অস্ত্র, গোলাবারুদ ও মাদকদ্রব্যসহ ডাকাত দলের ৬ সদস্যকে আটক করতে সক্ষম হয়।