০৪:০২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞায় জ্বালানি রপ্তানি থেকে ৯৮ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে রাশিয়া।

  • Reporter Name
  • Update Time : ০১:০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২
  • 38

ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর ১০০তম দিন পর্যন্ত জীবাশ্মভিত্তিক জ্বালানি রপ্তানি থেকে ৯৮ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে রাশিয়া। ফিনল্যান্ডভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ারের (সিআরইএ) সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, সিআরইএর প্রতিবেদন অনুসারে- যুদ্ধের প্রথম ১০০ দিনে রাশিয়ার জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানি রপ্তানির ৬০ শতাংশের ক্রেতা ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যার মূল্য প্রায় ৬০ বিলিয়ন ডলার। শীর্ষ আমদানিকারক দেশগুলোর মধ্যে আছে- চীন (১৩ দশমিক ২ বিলিয়ন), জার্মানি (১২ দশমিক ৭ বিলিয়ন), ইতালি (৮ দশমিক ২ বিলিয়ন), নেদারল্যান্ডস (৮ দশমিক ৪ বিলিয়ন), তুরস্ক (৭ বিলিয়ন), পোল্যান্ড (৪ দশমিক ৬ বিলিয়ন) এবং ভারত (৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন)।সিআরইএ’র বিশ্লেষক লরি মিলিভির্তা বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের উদ্যোগ নিয়েছে, কিন্তু ফ্রান্স দেশটি থেকে এলএনজি আমদানি বাড়িয়েছে।

বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক সময়ে, রুশ জ্বালানি রপ্তানির বেশিরভাগ অংশই গেছে ইউরোপে। কিয়েভ পশ্চিমের কাছে মস্কোর সঙ্গে সব ধরনের বাণিজ্য সম্পর্ক বিচ্ছিন্নের দাবি জানিয়ে আসলেও এ ক্ষেত্রে বাস্তবতা পুরোপুরি ভিন্ন। প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়ার জীবাশ্মভিত্তিক জ্বালানি থেকে পাওয়া রাজস্ব আসে মূলত অপরিশোধিত তেল বিক্রি করে। এই খাত থেকে দেশটির ৪৮ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার এসেছে। এরপরেই আছে পাইপলাইনের মাধ্যমে পাঠানো গ্যাস (২৫ দশমিক ১ বিলিয়ন), তেলজাত পণ্য (১৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন), এলএনজি (৫ দশমিক ৩ বিলিয়ন) এবং কয়লা (৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন)।যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী রুশ পণ্য বর্জনের কারণে মে মাসে রপ্তানি কমে গেলেও, জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানির দাম বেড়ে যাওয়ায় ক্রেমলিনের আয় কমেনি। বরং রপ্তানি থেকে আসা রাজস্ব নতুন নতুন রেকর্ড গড়েছে। সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে, ভারত রুশ ক্রুড ওয়েলের উল্লেখযোগ্য আমদানিকারকে পরিণত হয়েছে। ক্রুড ওয়েল রপ্তানির ১৮ শতাংশই যাচ্ছে ভারতে। এই ক্রুড ওয়েল পরিশোধনের পর এর বেশিরভাগ অংশই আবার পরিশোধিত তেল হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।

Tag :
About Author Information

দেশের ৮৭ উপজেলায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ চলছে

পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞায় জ্বালানি রপ্তানি থেকে ৯৮ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে রাশিয়া।

Update Time : ০১:০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২

ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর ১০০তম দিন পর্যন্ত জীবাশ্মভিত্তিক জ্বালানি রপ্তানি থেকে ৯৮ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে রাশিয়া। ফিনল্যান্ডভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ারের (সিআরইএ) সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, সিআরইএর প্রতিবেদন অনুসারে- যুদ্ধের প্রথম ১০০ দিনে রাশিয়ার জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানি রপ্তানির ৬০ শতাংশের ক্রেতা ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যার মূল্য প্রায় ৬০ বিলিয়ন ডলার। শীর্ষ আমদানিকারক দেশগুলোর মধ্যে আছে- চীন (১৩ দশমিক ২ বিলিয়ন), জার্মানি (১২ দশমিক ৭ বিলিয়ন), ইতালি (৮ দশমিক ২ বিলিয়ন), নেদারল্যান্ডস (৮ দশমিক ৪ বিলিয়ন), তুরস্ক (৭ বিলিয়ন), পোল্যান্ড (৪ দশমিক ৬ বিলিয়ন) এবং ভারত (৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন)।সিআরইএ’র বিশ্লেষক লরি মিলিভির্তা বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের উদ্যোগ নিয়েছে, কিন্তু ফ্রান্স দেশটি থেকে এলএনজি আমদানি বাড়িয়েছে।

বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক সময়ে, রুশ জ্বালানি রপ্তানির বেশিরভাগ অংশই গেছে ইউরোপে। কিয়েভ পশ্চিমের কাছে মস্কোর সঙ্গে সব ধরনের বাণিজ্য সম্পর্ক বিচ্ছিন্নের দাবি জানিয়ে আসলেও এ ক্ষেত্রে বাস্তবতা পুরোপুরি ভিন্ন। প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়ার জীবাশ্মভিত্তিক জ্বালানি থেকে পাওয়া রাজস্ব আসে মূলত অপরিশোধিত তেল বিক্রি করে। এই খাত থেকে দেশটির ৪৮ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার এসেছে। এরপরেই আছে পাইপলাইনের মাধ্যমে পাঠানো গ্যাস (২৫ দশমিক ১ বিলিয়ন), তেলজাত পণ্য (১৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন), এলএনজি (৫ দশমিক ৩ বিলিয়ন) এবং কয়লা (৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন)।যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী রুশ পণ্য বর্জনের কারণে মে মাসে রপ্তানি কমে গেলেও, জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানির দাম বেড়ে যাওয়ায় ক্রেমলিনের আয় কমেনি। বরং রপ্তানি থেকে আসা রাজস্ব নতুন নতুন রেকর্ড গড়েছে। সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে, ভারত রুশ ক্রুড ওয়েলের উল্লেখযোগ্য আমদানিকারকে পরিণত হয়েছে। ক্রুড ওয়েল রপ্তানির ১৮ শতাংশই যাচ্ছে ভারতে। এই ক্রুড ওয়েল পরিশোধনের পর এর বেশিরভাগ অংশই আবার পরিশোধিত তেল হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।