ধর্ষিতার চরিত্র নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করা রুখ‌তে ব্যবস্থা নি‌চ্ছে সরকার: আইনমন্ত্রী

joybd24joybd24
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  01:01 AM, 01 July 2021
ফাইল ফ‌টো।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ধর্ষণ মামলায় অনেক সময় ভিকটিমের চরিত্র নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করা হয়। এতে সামাজিকভাবে হেয় হতে পারে ধর্ষণের শিকার নারী। এমন পরিস্থিতি রুখতে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে সরকার।ফাইল ফ‌টো।

বুধবার (৩০ জুন) জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনের শেষ দিনে এ কথা বলেন।
আইনমন্ত্রী জানান, ভিকটিমের চরিত্র নিয়ে কথা বলার বিষয়ে পরিবর্তন আনা হবে। সেপ্টেম্বরের অধিবেশনেই আইনটি সংসদে উত্থাপন করা হবে। পরিবর্তন আনা হবে সাক্ষ্য আইনেরও। করোনার কারণে ভার্চুয়াল কোর্ট পরিচালনা করতে সাক্ষ্য নেওয়া কঠিন হয়ে পড়ে।

আইনমন্ত্রী বলেন, ভার্চুয়াল কোর্টে ১ লাখ ৩৭ হাজার মামলার নিষ্পত্তি হয়েছে। তবে এখনও ৩৯ লাখ মামলার জট লেগে আছে দেশের বিভিন্ন আদালতে।

আইন মন্ত্রণালয়ের ছাঁটাই প্রস্তাবের বাজেট আলোচনায় মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য কয়েকজন সংসদ সদস্য বিচারক নিয়োগের পরামর্শ দেন। তবে বিচারক নিয়োগ প্রক্রিয়া যেন হয় দলমতের ঊর্ধ্বে থাকে। তারা বলেন, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড চলছেই। সৎ বিচারক না হলে রাষ্ট্র ধ্বংস হয়ে যাবে।

ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য বলেন, কোর্ট কাচারির উন্নতি হয়েছে কিন্তু আদালতের কার্যক্রমের গতি পাচ্ছে না। ব্যাংকগুলোর আর্থিক অনিয়মের বিচার কাজে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল করা যায় কিনা ভাবতে হবে।

এ সময় আইনমন্ত্রী জানান, বিচারক নিয়োগ প্রক্রিয়া চলমান আছে।
চাপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের বিএনপির সংসদ সদস্য হারুণ অর রশীদ বলেন, খালেদা জিয়ার মামলায় সরকার চাইলেই ৪০১ ধারা অনুযায়ী বিদেশে সু-চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারে।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ইতিহাস মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জেলে থাকা অবস্থায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন বারবার আবেদন করেও তৎকালীন সরকার সু-চিকিৎসার ব্যবস্থা করেনি।
আইনমন্ত্রী জানান, ৪০১ ধারার অনুযায়ী বিএনপি এরইমধ্যে একবার আবেদন করেছে। দুইটি শর্ত সাপেক্ষে জেলের বাইরে থেকে দেশেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। এই ধারায় দ্বিতীয়বার আবেদন করার কথা কোথাও লেখা নেই। এখন সরকারের কাছে বা রাষ্ট্রপতির কাছে দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চাইলে তারা বিবেচনা করতে পারে।