০৬:০৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহে এক যুবদল নেতাকে কুপিয়ে হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করেছে দুর্বৃত্তরা

ঝিনাইদহে লিটন হোসেন নামে এক যুবদল নেতাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দুর্বৃত্তরা।
এতে তার এক হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন এবং অন্য হাতের ৮০ ভাগ কেটে গেছে।
তিনি জেলা যুবদলের সদস্য ও পাগলাকানাই ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) রাতে পাগলা কানাই ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

আহত লিটন সদর উপজেলার বাড়ীবাথান গ্রামের রেজাউল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, যুবদল নেতা লিটন হোসেন সন্ধ্যার পর পাগলাকানাই মোড় থেকে বাড়ি ফিরছিলেন।
পথিমধ্যে পাগলাকানাই ইউনিয়ন পরিষদের কাছে দুর্বৃত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে ফেলে রেখে যায়।
পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করেন।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জেসমিন সুলতানা বলেন, ধারালো অস্ত্রের আঘাতে লিটনের হাতের ৮০ ভাগ কেটে গেছে।
আর অন্য হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এছাড়াও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে।
অবস্থা গুরুতর হওয়ায় আমরা তাকে ঢাকায় পাঠিয়েছি।

ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট এম এ মজিদ গণমাধ্যমকে বলেন, বিএনপির এক দফা আন্দোলন জোরালো হয়েছে।
পাগলা কানাই ইউনিয়নে লিটন আন্দোলন জোরদার করছেন।
এর আগেও তাকে মারার চেষ্টা করা হয়েছিল। আমরা এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা গণমাধ্যমকে বলেন,
পূর্বশত্রুতার জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। আমরা দোষীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছি।

Tag :
About Author Information

ভারতে ৩শ’ রুপির গয়না ৬ কোটিতে বিক্রি করে মার্কিন নারীর সঙ্গে প্রতারণা।

ঝিনাইদহে এক যুবদল নেতাকে কুপিয়ে হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করেছে দুর্বৃত্তরা

Update Time : ০৮:৫১:০২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুলাই ২০২৩

ঝিনাইদহে লিটন হোসেন নামে এক যুবদল নেতাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দুর্বৃত্তরা।
এতে তার এক হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন এবং অন্য হাতের ৮০ ভাগ কেটে গেছে।
তিনি জেলা যুবদলের সদস্য ও পাগলাকানাই ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) রাতে পাগলা কানাই ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

আহত লিটন সদর উপজেলার বাড়ীবাথান গ্রামের রেজাউল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, যুবদল নেতা লিটন হোসেন সন্ধ্যার পর পাগলাকানাই মোড় থেকে বাড়ি ফিরছিলেন।
পথিমধ্যে পাগলাকানাই ইউনিয়ন পরিষদের কাছে দুর্বৃত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে ফেলে রেখে যায়।
পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করেন।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জেসমিন সুলতানা বলেন, ধারালো অস্ত্রের আঘাতে লিটনের হাতের ৮০ ভাগ কেটে গেছে।
আর অন্য হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এছাড়াও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে।
অবস্থা গুরুতর হওয়ায় আমরা তাকে ঢাকায় পাঠিয়েছি।

ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট এম এ মজিদ গণমাধ্যমকে বলেন, বিএনপির এক দফা আন্দোলন জোরালো হয়েছে।
পাগলা কানাই ইউনিয়নে লিটন আন্দোলন জোরদার করছেন।
এর আগেও তাকে মারার চেষ্টা করা হয়েছিল। আমরা এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা গণমাধ্যমকে বলেন,
পূর্বশত্রুতার জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। আমরা দোষীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছি।