জো বাইডেন। খাশোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে নীরব

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  02:27 AM, 17 July 2022

শুক্রবার সউদী আরব সফর করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সেখানে সউদী ক্রাউন প্রিন্সের সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে নীরব ছিলেন তিনি। বিনিময়ে তিনি তেলের উৎপাদন বৃদ্ধিতে সউদী আরবকে চাপ দিয়েছেন।

এখন পর্যন্ত তার সবচেয়ে জটিল বিদেশী সফরে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সাথে বাইডেনের সাক্ষাৎ বাস্তবিক সউদী নেতাকে আন্তর্জাতিক পুনর্বাসনের একটি পরিমাপ দিয়েছে যা তিনি চেয়েছিলেন, যখন ইসরাইলের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের দিকে পদক্ষেপ নেয়া এবং একটি যুক্তরাষ্ট্র ও সউদীর মধ্যে অঘোষিত বোঝাপড়া শিগগিরই বাড়িতে উচ্চ গ্যাসের দাম উপশম করতে আরো তেল উৎপাদন করবে। বাইডেনের অস্বস্তি স্পষ্ট ছিল, কারণ তিনি রাজপুত্রের সাথে হ্যান্ডশেক এড়িয়ে গিয়েছিলেন যা শেষ পর্যন্ত রাজনৈতিকভাবে কম সমস্যাযুক্ত প্রমাণিত হয়নি। ক্যামেরা তাদের পরবর্তী বৈঠকের সূচনা রেকর্ড করার সময়, প্রেসিডেন্ট জামাল খাশোগির কোন উল্লেখ করেননি, যিনি ছিলেন ওয়াশিংটন পোস্টের কলামিস্ট যাকে সউদী অপারেটিভদের দিয়ে ২০১৮ সালে হত্যা করা হয় এবং যুবরাজ নীরবে হাসলেন যখন একজন সাংবাদিক জিজ্ঞাসা করলেন যে, তিনি পরিবারের কাছে ক্ষমা চান কিনা।

কিন্তু বাইডেন পরে সাংবাদিকদের বলেন যে, খাশোগির হত্যাকাণ্ড ছিল ‘আক্রোশজনক’ এবং বলেন যে, তিনি ব্যক্তিগতভাবে ক্রাউন প্রিন্সের মুখোমুখি হয়েছেন। ‘আমি এটিকে বৈঠকের শীর্ষে উত্থাপন করেছি, আমি সেই সময়ে কী ভেবেছিলাম এবং এখন এটি সম্পর্কে কী ভাবছি তা স্পষ্ট করে দিয়েছি,’ তিনি বলেন, ‘আমি এটি নিয়ে আলোচনায় সরল এবং সরাসরি ছিলাম। আমি আমার দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার করে দিয়েছি।’ তিনি জানিয়েছেন যে, প্রিন্স মোহাম্মদ যিনি প্রায়শই আদ্যাক্ষর ‘এমবিএস’-এ পরিচিত, দোষ অস্বীকার করেন। ‘তিনি মূলত বলেন যে, তিনি ব্যক্তিগতভাবে এর জন্য দায়ী নন,’ বাইডেন বলেন, ‘আমি ইঙ্গিত দিয়েছিলাম যে, আমি ভেবেছিলাম সে ছিল।’ এছাড়া দুই নেতার মধ্যে জ্বালানি নিয়ে বিস্তর আলোচনা হয়। সউদী আরব জ্বালানি সঙ্কট সমাধানে পদক্ষেপ নেবে বলে আশা প্রকাশ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

২০১৮ সালে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সউদী কনস্যুলেটে হত্যা করা হয় ওয়াশিংটন পোস্টের সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী, ওই হত্যাকাণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিলেন সউদী ক্রাউন প্রিন্স নিজেই। যদিও প্রথম থেকেই তিনি এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। নিজের নির্বাচনী প্রচারণা চলার সময়েও বাইডেন সউদী আরবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন। খাশোগি হত্যাকাণ্ডের জন্য সউদী আরবকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার কথাও বলেছিলেন তিনি। প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পরই এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশ্যে আনেন বাইডেন। তাতে বলা হয় যে, ক্রাউন প্রিন্সের নির্দেশেই খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে।

সউদী ক্রাউন প্রিন্সের সঙ্গে বৈঠকে বিভিন্ন ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন বাইডেন। শুক্রবার জেদ্দার আস-সালাম প্রাসাদে এ আলোচনা হয় বলে সউদী প্রেস অ্যাজেন্সি জানিয়েছে। তবে সেখানে উপেক্ষিত থাকে খাশোগি প্রসঙ্গও। মধ্যপ্রাচ্য সফরের শেষ পর্যায়ে বাইডেন এখন সউদী আরব রয়েছেন। প্রথমেই তিনি ইসরাইল এবং পরে ফিলিস্তিন সফর করেন বাইডেন। পরে তিনি ইসরাইলের তেল আবিব থেকে সরারসি ফ্লাইটে জেদ্দা আসেন। কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্টের এটিই সরাসরি ইসরাইল থেকে সউদী আরব আগমন ঘটল।

এ ঘটনায় মানবাধিকার কর্মীরা এবং যারা খাশোগির ঘনিষ্ঠ ছিলেন তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। খাশোগির বাগদত্তা হ্যাতিস চেঙ্গিজ তার হয়ে টুইট করে বলেছেন, ‘এটাই কি সেই জবাবদিহিতা যা আপনি আমার হত্যার বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন? এমবিএস-এর পরবর্তী শিকারদের রক্ত আপনার হাতে রয়েছে।’ ওয়াশিংটন পোস্টের প্রকাশক ফ্রেড রায়ান এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট বাইডেন এবং মোহাম্মদ বিন সালমানের মধ্যে মুষ্টিবদ্ধ ধাক্কা একটি হ্যান্ডশেকের চেয়েও খারাপ ছিল – এটি ছিল লজ্জাজনক।’ তিনি বলেন, ‘এটি ঘনিষ্ঠতা এবং স্বাচ্ছন্দ্যের একটি স্তরের অনুমান করেছে যা এমবিএসকে অযৌক্তিক মুক্তি দেয় যা সে মরিয়া হয়ে চেয়েছিল।’ সূত্র : নিউইয়র্ক টাইমস।