০৮:৩৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছিনতাইয়ের দেড় মা‌সেরও বেশী সময় পর উদ্ধার হ‌লো মন্ত্রীর মোবাইল।

  • Reporter Name
  • Update Time : ১১:১৫:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ জুলাই ২০২১
  • 46

অবশেষে ছিনতাইয়ের ৫০ দিন পর পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গাড়ির জানালা দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের হাত থেকে আইফোনটি ছিনতাই করে নিয়ে গিয়েছিল ওই চক্র।

ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপ কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান জানান, রোববার রাতে মোবাইলটি উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মো. সগির, মো. সুমন মিয়া, মো. জাকির, হামিদ আহম্মেদ সোহাগ ওরফে আরিফ ও মো. জীবন। এসময় তাদের কাছ থেকে ১টি মোটরসাইকেল, বিভিন্ন মডেলের ১০টি ফোন, ১টি ল্যাপটপ ও মোবাইলের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের মোবাইল ছিনতাইয়ের পর চারবার হাত বদল হয়। প্রত্যেকেই কেনার পর যখন বুঝতে পারেন মোবাইলটি পরিকল্পনামন্ত্রীর তখন তারা বিক্রি করে দেন। অবশেষে দেড় মাসের বেশি সময় পর মন্ত্রীর ফোনটি উদ্ধার করা হয়েছে। অন্য একটি মামলার তদন্তের সূত্র ধরে পরিকল্পনামন্ত্রীর মোবাইলটি উদ্ধারসহ ছিনতাই চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ডিএমপির রমনা বিভাগ পুলিশ।

পুলিশ বলছে, জীবন নামে এক চোরাই মোবাইল কারবারিকে গ্রেফতার করে রমনা বিভাগ পুলিশ। মূলত তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই পুরো চক্রটি ধরা পড়ে ও মোবাইলটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

পুলিশের দাবি, জীবন মোবাইলটি পেয়েছে আরিফ নামে একজনের কাছ থেকে। আরিফ মন্ত্রীর মোবাইলটি সফওয়্যার ব্যবহার করে আনলক করে জীবনের কাছে বিক্রি করে। আরিফ ফোনটি নিয়েছিল জাকির নামে একজনের কাছ থেকে। জাকির পেয়েছে সগির আর সুমনের কাছ থেকে। আর সগির আর সুমনই মোবাইলটি ছিনতাই করেছিল বলে দাবি পুলিশের।

সোমবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. সাজ্জাদুর রহমান।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ মে সন্ধ্যায় বিজয় সরণির রাস্তায় গাড়িতে বসা অবস্থায় মোবাইল ফোন খোয়ান পরিকল্পনামন্ত্রী। ছিনতাইকারী গাড়ির খোলা জানালা দিয়ে মন্ত্রীর হাত থেকে তার আইফোন ছোঁ মেড়ে নিয়ে উধাও হয়।

মন্ত্রীর সঙ্গে থাকা নিরাপত্তাকর্মীরা পিছু নিয়েও ছিনতাইকারীকে ধরতে পারেননি। পরে ১ জুন কাফরুল থানায় একটি মামলা করা হয়।

Tag :
About Author Information

৫০০ টাকার জন্য শিশুকে ব্রহ্মপুত্রে ফেলে দিলো কিশোর।

ছিনতাইয়ের দেড় মা‌সেরও বেশী সময় পর উদ্ধার হ‌লো মন্ত্রীর মোবাইল।

Update Time : ১১:১৫:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ জুলাই ২০২১

অবশেষে ছিনতাইয়ের ৫০ দিন পর পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গাড়ির জানালা দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের হাত থেকে আইফোনটি ছিনতাই করে নিয়ে গিয়েছিল ওই চক্র।

ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপ কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান জানান, রোববার রাতে মোবাইলটি উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মো. সগির, মো. সুমন মিয়া, মো. জাকির, হামিদ আহম্মেদ সোহাগ ওরফে আরিফ ও মো. জীবন। এসময় তাদের কাছ থেকে ১টি মোটরসাইকেল, বিভিন্ন মডেলের ১০টি ফোন, ১টি ল্যাপটপ ও মোবাইলের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের মোবাইল ছিনতাইয়ের পর চারবার হাত বদল হয়। প্রত্যেকেই কেনার পর যখন বুঝতে পারেন মোবাইলটি পরিকল্পনামন্ত্রীর তখন তারা বিক্রি করে দেন। অবশেষে দেড় মাসের বেশি সময় পর মন্ত্রীর ফোনটি উদ্ধার করা হয়েছে। অন্য একটি মামলার তদন্তের সূত্র ধরে পরিকল্পনামন্ত্রীর মোবাইলটি উদ্ধারসহ ছিনতাই চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ডিএমপির রমনা বিভাগ পুলিশ।

পুলিশ বলছে, জীবন নামে এক চোরাই মোবাইল কারবারিকে গ্রেফতার করে রমনা বিভাগ পুলিশ। মূলত তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই পুরো চক্রটি ধরা পড়ে ও মোবাইলটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

পুলিশের দাবি, জীবন মোবাইলটি পেয়েছে আরিফ নামে একজনের কাছ থেকে। আরিফ মন্ত্রীর মোবাইলটি সফওয়্যার ব্যবহার করে আনলক করে জীবনের কাছে বিক্রি করে। আরিফ ফোনটি নিয়েছিল জাকির নামে একজনের কাছ থেকে। জাকির পেয়েছে সগির আর সুমনের কাছ থেকে। আর সগির আর সুমনই মোবাইলটি ছিনতাই করেছিল বলে দাবি পুলিশের।

সোমবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. সাজ্জাদুর রহমান।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ মে সন্ধ্যায় বিজয় সরণির রাস্তায় গাড়িতে বসা অবস্থায় মোবাইল ফোন খোয়ান পরিকল্পনামন্ত্রী। ছিনতাইকারী গাড়ির খোলা জানালা দিয়ে মন্ত্রীর হাত থেকে তার আইফোন ছোঁ মেড়ে নিয়ে উধাও হয়।

মন্ত্রীর সঙ্গে থাকা নিরাপত্তাকর্মীরা পিছু নিয়েও ছিনতাইকারীকে ধরতে পারেননি। পরে ১ জুন কাফরুল থানায় একটি মামলা করা হয়।