চ‌সিক নির্বাচ‌নে একতায় আওয়ামী লী‌গের মন্ত্রী এম‌পিরা, বি‌দ্রোহী ও মদদ দাতাদের বিরুদ্ধে ক‌ঠোর অবস্থান।

জয়‌বি‌ডিজয়‌বি‌ডি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  01:38 AM, 03 January 2021

“দল কাউন্সিলর পদে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছে। মাথা ঘামাবে না কেন? এখানে একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।”- প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি।

“কাউন্সিলর নির্বাচনে দল মাথা ঘামাবে না— এই ধরনের কোনো সিদ্ধান্তই নেওয়া হয়নি। বরং বিদ্রোহী কাউন্সিলরদের বিষয়ে আগের মতোই ‘কঠোর অবস্থানে’ হাইকমান্ড”-নগ‌রের শীর্ষ নেতারা।

আসন্ন ২৭ জানুয়ারীতে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন‌কে কেন্দ্র ক‌রে ০১/০১/২০২১ইং শুক্রবার চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এক গুরুদ্বপূর্ণ মত‌বি‌নিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র প্রার্থী রেজাউল ক‌রিম‌কে সাথে নি‌য়ে এ মত‌বি‌নিময় সভায় উপ‌স্থিত ছি‌লেন চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার আওয়ামী লীগের এমপি-মন্ত্রী ও দলের শীর্ষ নেতারা।

নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যরা। পুনঃতফসিলের পর নির্বাচনী কার্যক্রম চলমান থাকার মধ্যেই চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে আওয়ামী লীগের সাংসদ ও জ্যেষ্ঠ নেতারা বসে বেশ কিছু দলীয় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বৈঠকে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী ও মদদ দাতা‌দের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

‌বৈঠ‌কে সম্প্র‌তি চলমান সকল ঘটনা পর্যা‌লোচনায় বেশী কিছু ক‌ঠোর গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি বৈঠ‌কে সতর্ক ক‌রেন যে, দলীয় ম‌নোনীত মেয়র প্রার্থী, মহানগরের কোন শীর্ষ নেতা, সদস্য কোন ভা‌বেই চ‌সিক নির্বাচ‌নে অংশগ্রহনকারী দ‌লের বিরুদ্ধে গি‌য়ে কোন বি‌দ্রোহী প্রার্থীর সা‌থে আলোচনা, সভা, মি‌ছি‌লে অংশ গ্রহন না করার জন্য।

বৈঠক শেষে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের কাছে বৈঠ‌কের আলোচনার বিষ‌য়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিটি নির্বাচনের বিষয়ে আমাদের দলীয় আলোচনা হয়েছে, আর কিছু নয়। দলীয় মনোনয়ন না মেনে প্রার্থী হওয়া নিয়ে আলোচনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের ম‌নোনীত সকল প্রার্থী‌দের প‌ক্ষে এক‌যো‌গে নেতা কর্মী‌দের কাজ করার জন্য নি‌র্দেশনা দেওয়া হ‌য়ে‌ছে। বিদ্রোহী প্রার্থীদের নি‌য়ে দ‌লের কোন নেতা কর্মী‌দের সং‌শ্লিষ্টতার বিষ‌য়ে কি করা হ‌বে তা নি‌য়ে আলোচনা হ‌য়ে‌ছে। আওয়ামী লী‌গের প্রার্থী ছাড়া বাকিরা অন্য দ‌লের নিজস্ব প্রার্থীরা নির্বাচ‌নে আছেন।।’

“দ‌লে কোন বি‌দ্রোহী প্রার্থী নেই” বল‌তে কি বু‌ঝি‌য়ে‌ছেন জান‌তে চাই‌লে জনাব ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন ব‌লেন, “কিছু‌দিন আগে পর্যন্ত যা‌দের‌কে দ‌লের বি‌দ্রোহী ‌হি‌সে‌বে বুঝা‌নো হ‌য়েছি‌লো তারা এখন আর আওয়ামী লী‌গের কেউ নন। তারা সক‌লেই এখন আওয়মী লী‌গের ক্ষ‌তি করার জন্য কিছু ব্যা‌ক্তি। বর্তমা‌নে যারা দ‌লের ম‌নোনয়ন নি‌য়ে নির্বাচন কর‌ছেন তারাই দ‌লের, এর বা‌হি‌রে দ‌লের কোন ব্যা‌ক্তি নেই।”

‌এদি‌কে আজ‌কে, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে আওয়ামী লীগের অবস্থান ভুলভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দলটির নেতারা। তারা বলছেন, কাউন্সিলর নির্বাচনে দল মাথা ঘামাবে না— এই ধরনের কোনো সিদ্ধান্তই নেওয়া হয়নি। বরং বিদ্রোহী কাউন্সিলরদের বিষয়ে আগের মতোই ‘কঠোর অবস্থানের’ কথা বলছেন দলটির নেতারা।

শুক্রবার রাতে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এই কথা বলার পর অনেকেই ভাবতে শুরু করছিলেন কাউন্সিলর নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের অবস্থান পরিবর্তিত হয়েছে। তবে এই আলোচনাকে নাকচ করে দিয়ে এই বিষয়ে একটা ভুল বোঝাবুঝি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খোদ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন নিজেই।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘দল কাউন্সিলর পদে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছে। মাথা ঘামাবে না কেন? এখানে একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি বলেছি যারা দলের সিদ্ধান্তের বাইরে দাঁড়িয়েছে, তারা নিজস্ব প্রার্থী। মানে তাদের দায়দায়িত্ব তাদের। আমি তো এটাও বলেছি যে আমাদের দলীয় প্রার্থী আছে।’

পুরো বিষয়টিকে ‘ভুল বোঝাবুঝি’ হিসেবে অভিহিত করে আওয়ামী লীগের প্রবীণ এই নেতা বলেন, ‘এখানে যেটা হয়েছে সেটা হচ্ছে মিস আন্ডারস্ট্যান্ডিং। কাউন্সিলর নির্বাচন নিয়ে আমাদের অবস্থান আগেই বলা হয়েছে। দলীয় প্রার্থী যারা আছে তাদের জয়ী করতে দলের নেতাকর্মীদের কাজ করতে হবে।’

‌কে‌ন্দ্রের নি‌র্দে‌শের বিরু‌দ্ধে গি‌য়ে দ‌লের ম‌নোনীত প্রার্থী‌দের বিরু‌দ্ধে নির্বাচন কর‌ছে এমন এখন পর্যন্ত ১৩ জন‌কে চি‌হ্নিত করা হ‌য়ে‌ছে যারা কিনা নি‌জে‌দের দীর্ঘ‌দি‌নের আওয়ামী লী‌গের একান্ত স্বজ্জন ব‌লে দাবী ক‌রেন, তারা কী আওয়ামী লী‌গের কেউ নন?-প্র‌তি‌বেদ‌কের এমন প্রশ্নের জবা‌বে মাননীয় এম‌পি ম‌হোদয় ব‌লেন, ” কখনই না। যারা স‌ত্যিকার ভা‌বে দল‌কে ভা‌লোবা‌সেন, দ‌লের নী‌তি নির্ধারক‌দের মতামত‌কে সম্মান ক‌রেন তারা কখ‌নোই দ‌লের নি‌র্দে‌শের বা‌হি‌রে গি‌য়ে দ‌লের সাংগঠ‌নিক কর্মকান্ড‌কে অপমান ক‌রেন না। আর যারা ক‌রে‌ছেন তারা নি‌জে‌দের এতো‌দিন আওয়ামী লী‌গের এক‌নিষ্ঠ ম‌নে ক‌রে আস‌লেও আদ‌তে তারা কখ‌নোই দ‌লের জন্য এক‌নিষ্ঠ ছি‌লেন না।”

‌তি‌নি আরও ব‌লেন, ” অ‌নেক‌কেই সু‌যোগ দেয়া হ‌য়ে‌ছি‌লো কে‌ন্দ্রের নি‌র্দেশ মে‌নে নির্বাচনের মাঠ থে‌কে স‌রে দাঁড়া‌তে এবং দ‌লের ম‌নোনীত প্রার্থী‌কে সমর্থন দি‌তে। কিন্তু তারা তা ক‌রেন নি, তাই কেন্দ্র এদের এখন আর আওয়ামী লী‌গের কেউ ম‌নে ক‌রেন না। দলীয় শৃঙ্খলা আনয়‌নে আরও ক‌ঠোর ব্যবস্থা নেয়া হ‌বে।”

আওয়ামী লী‌গের প্রভাবশালী এই প্রেসিডিয়াম সদস্য আরও ব‌লেন, ” এদের মদদ দাতা‌দের ক‌ঠোর নজরদারী‌তে রাখা হ‌য়ে‌ছে।”

‌তি‌নি আরও ব‌লেন, ” বি‌ভিন্ন সংবাদ মাধ্য‌মে বি‌দ্রোহী প্রার্থী নি‌য়ে আমার বক্তব্য‌কে বিভ্রান্ত করা হ‌চ্ছে। এটা ঠিক না।”

‌বৈঠ‌কে শে‌ষে সা‌র্কিট হাউজ থে‌কে নেতারা বের হ‌য়ে এলে সংবাদ মাধ্য‌মের মু‌খোমু‌খি হন। ‌বৈঠক থে‌কে বের হবার সময় আ জ ম নাছির উদ্দীনের কাছে বৈঠক সম্প‌র্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যা বলার মোশাররফ ভাই বলবেন। আমি কিছু বলব না।’

রাঙ্গুনিয়ার সাংসদ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদও সাংবাদিকদের কাছে কোনো মন্তব্য করেননি।

এদি‌কে বৈঠক শে‌ষে চট্টগ্রাম-৯ আসনের সাংসদ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, আচরণবিধি অনুযায়ী আমরা এমপিরা তখন কিন্তু প্রচারণায় অংশ নিতে পারব না। তাই দলীয় নেতা কর্মীরা দ‌লের প্রার্থী‌দের সমর্থ‌নে কিভা‌বে ভোটার‌দের কাছাকা‌ছি যাওয়‌া যায় সে‌ বিষ‌য়ে আলোচনা হ‌য়ে‌ছে।” বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে দলের ‘কঠোর অবস্থান থাকবে বলে জানান নওফেল।

উ‌ল্লেখ্য যে, কাউন্সিলর পদে দলের ‘বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে যারা নির্বাচন করছেন ব‌লে হাইকমা‌ন্ডের ন‌থি‌তে সর্ব‌শেষ ন‌থিভুক্ত আছেন ব‌লে ‌গোপন সূ‌ত্রে জানা যায়, তারা হলেন-
১ নং দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের তৌফিক আহমেদ চৌধুরী, ২ নং জালালাবাদ ওয়ার্ডের সাহেদ ইকবাল বাবু, ৯ নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের জহুরুল আলম জসীম, ১১ নং দক্ষিণ কাট্টলী ওয়ার্ডের মারশেদ আকতার চৌধুরী, ১২ নং সরাইপাড়া ওয়ার্ডে সাবের আহমেদ, ১৪ নং লালখান বাজার ওয়ার্ডের এফ কবির মানিক, ২৫ নং রামপুরা ওয়ার্ডের এসএম এরশাদ উল্লাহ, ২৬ নং উত্তর হালিশহর ওয়ার্ডের লায়ন মোঃ ইলিয়াস, ২৭ নং দক্ষিণ আগ্রাবাদ ওয়ার্ডের এইচএম সোহেল, ২৮ নং পাঠানটুলী ওয়ার্ডের আব্দুল কাদের, ৩০ নং ওয়ার্ডের মাজাহারুল ইসলাম চৌধুরী, ৩১ নং ওয়ার্ডের তারেক সোলায়মান সেলিম ও ৩৩ নং ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ডের হাসান মুরাদ বিপ্লব।

গতকা‌লের বৈঠ‌কের পর প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি সা‌হে‌বের “দ‌লে কোন বি‌দ্রোহী প্রার্থী নেই”~মন্তব্য‌টি উপ‌রোক্ত প্রার্থী‌দের বিষ‌য়ে দল ইতিম‌ধ্যে যে ক‌ঠোর অবস্থা‌নে পৌঁ‌ছে‌ছেন তার এক‌টি ইঙ্গিত পাওয়া যায় ব‌লে নগরীর রাজ‌নৈ‌তিক বি‌শ্লেষকরা ম‌নে কর‌ছেন।

এসব দল‌বি‌রোধী প্রার্থী‌দের কার্যকলাপ নি‌য়ে বল‌তে গি‌য়ে নাম প্রকা‌শে অ‌নিচ্ছুক মহানগ‌রের এক প্রভাবশালী নেতা ব‌লেন, “দল এসব প্রার্থী‌দের এখন বি‌দ্রোহীও ম‌নে ক‌রে না আবার দ‌লের ও ম‌নে ক‌রেন না। যারা এরই ম‌ধ্যে দ‌লের বি‌ভিন্ন প‌দে আছেন তা‌দের বিষ‌য়ে কে‌ন্দ্রে এক ধর‌নের সিদ্ধান্ত হ‌য়ে গে‌ছে।”
‌তি‌নি আরও ব‌লেন, “তারা মূলতঃ জামা‌তের মতাদর্শী। এ নির্বাচ‌নের মা‌ঠে তা‌দের আ‌শে পা‌শে কিছু‌দিন আগেও বিএন‌পি-জামা‌তের রাজনী‌তির সা‌থে সম্পৃক্ত ছি‌লো এমন হাইব্রীড‌দের দেখা যা‌চ্ছে। কে‌ন্দ্রে এদের বিষদ তথ্যপ্রমানা‌দি সংর‌ক্ষিত আছে।”

‌সম্প্র‌তি মহানগ‌রের কিছু নেতা‌দের বি‌ভিন্ন ওয়া‌র্ডে ওয়া‌র্ডে সরাস‌রি আওয়ামী লীগ থে‌কে ম‌নোনয়ন না পাওয়া প্রার্থী‌দের নি‌য়ে নির্বাচনী সভা চা‌লি‌য়ে যা‌চ্ছেন‌ বিষ‌য়ে মহানগ‌রের এই প্রভাবশালী নেতার কা‌ছে জান‌তে চাই‌লে ব‌লেন, সম্প্র‌তি কিছু ভি‌ডিও ও অনলাইন প‌ত্রিকার মাধ্য‌মে ‌কিছু বিষয়‌ নগ‌রের গোচ‌রে এসে‌ছে, তা খ‌তি‌য়ে দেখা হ‌চ্ছে।
তি‌নি আরও জানান, চ‌সিক নির্বাচ‌নে বি‌দ্রোহী বা দলীয় ম‌নোনয়ন না পে‌য়ে দ‌লের আওয়ামী লী‌গ সমর্থিত ব্যা‌ক্তি হ‌য়েও দলীয় ম‌নোনীত ব্যা‌ক্তি‌কে সমর্থন না দি‌য়ে বরং নির্বাচ‌নে অংশগ্রহন ক‌রে দল‌কে বিপ‌দে ফেল‌ছে তা‌দের ও তা‌দের সা‌থে দ‌লের যে কোন ব্যা‌ক্তির সং‌শ্লিষ্টতার বিষয়‌টিও দলের কেন্দ্রের গোচ‌রে যা‌চ্ছে। ভো‌টের আগের দিন পর্যন্ত বি‌দ্রোহী ও তা‌দের মদদ দাতা‌দের বিষয়‌টি কে‌ন্দ্রের গোচ‌রে দেবার জন্য উপর থে‌কে নি‌র্দেশ আছে।

অন্য‌দি‌কে বি‌দ্রোহী প্রার্থীরা অ‌নেক ওয়া‌র্ডে এলাকার কি‌শোর গ্যাং গু‌লি‌কে স‌ক্রিয় করার চেষ্টা কর‌ছে। দেখা গে‌ছে অ‌নেক ওয়া‌র্ডে এলাকায় প্রভাব সৃ‌ষ্টিকারী বি‌ভিন্ন ব্যাক্তিনামীয় বি‌ভিন্ন গ্রুপ গু‌লো‌কে অ‌র্থের বি‌নিম‌য়ে একাট্টা কর‌ছেন বি‌দ্রোহী প্রার্থীরা। আর এলাকার বি‌ভিন্ন গ্রু‌পের র‌য়ে‌ছে স্ব স্ব কি‌শোর গ্যাং। এসব গ্রুপ যারা চালা‌চ্ছেন তারা বেশীর ভাগই বর্তমা‌নে আওয়ামী লী‌গের বি‌ভিন্ন অঙ্গসংগঠ‌নের মহানগর পদ-পদাধীকারী ও সদস্য।

গতকা‌লের সা‌র্কিট হাউ‌জের এ বৈঠকে উপ‌স্থিত ছি‌লেন, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ এমপি, ড. আবু রেজা মো. নেজামুদ্দীন নদভী এমপি, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী এমপি, সাইমুম সারওয়ার কমল এমপি, আশেক উল্লাহ রফিক এমপি, খাদিজাতুল আনোয়ার সনি এমপি, সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম, সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :