০৯:৫২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চল‌তি মৌসু‌মে ১ কোটি ৭১ লাখ টাকার শ্রীমঙ্গলের চা বি‌ক্রি হ‌য়ে‌ছে।

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৯:০৮:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১
  • 27

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে চলতি মৌসুমের চতুর্থ চা নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। নিলামে বিক্রির জন্য ১ লাখ ৪০ হাজার কেজি চা প্রস্তাব করা হয়। এর মধ্যে বিক্রি হয়েছে ৯০ হাজার কেজি। এসব চায়ের বাজারমূল্য ১ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

জানা যায়, এবারের নিলামে প্রথমবারের মতো কয়েকটি নতুন জাতের চা সরবরাহ করা হয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ দামে বিক্রি হয়েছে হানি গ্রিন টি।

শ্রীমঙ্গল চা নিলাম ব্যবস্থাপনায় থাকা সংগঠন টি প্লান্টার্স অ্যান্ড ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিপিটিএবি) জানায়, বুধবার (২৩ জুন) এ নিলাম অনুষ্ঠিত হয়।

মৌসুমের চতুর্থ নিলামে দেশের বিভিন্ন স্থানের অর্ধশতাধিক ক্রেতা ও ব্রোকার হাউজ অংশ নেয়। নিলামে বড়লেখা উপজেলার স্কয়ার গ্রুপের প্রতিষ্ঠান শাবাজপুর টি এস্টেটে উৎপাদিত লেমন গ্রিন টি, হানি গ্রিন টি, আর্ল গ্রিন টি ও মাচা গ্রিন টি প্রথমবারের মতো সরবরাহ করা হয়। এর মধ্যে এক কেজি হানি গ্রিন টি সর্বোচ্চ ৩ হাজার ১০০ টাকায় বিক্রি হয়। নিলামে প্রতি কেজি চায়ের সর্বনিম্ন দাম ছিল ১৪৫ টাকা। প্রতি কেজি চয়ের গড় দাম উঠেছিল ১৯০ টাকা পর্যন্ত।

টিপিটিএবির সদস্য সচিব জহর তরফদার বলেন, করোনা মহামারীর কারণে নিলাম কার্যক্রম শুরু করতে এবার কিছুটা দেরি হয়েছে। তবে গত মৌসুমের তুলনায় এবার দুটি নিলাম বেশি অনুষ্ঠিত হবে। চলতি মৌসুমে মোট ২২টি নিলাম অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

Tag :
About Author Information

জনপ্রিয় সংবাদ

একুশে ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

চল‌তি মৌসু‌মে ১ কোটি ৭১ লাখ টাকার শ্রীমঙ্গলের চা বি‌ক্রি হ‌য়ে‌ছে।

Update Time : ০৯:০৮:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে চলতি মৌসুমের চতুর্থ চা নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। নিলামে বিক্রির জন্য ১ লাখ ৪০ হাজার কেজি চা প্রস্তাব করা হয়। এর মধ্যে বিক্রি হয়েছে ৯০ হাজার কেজি। এসব চায়ের বাজারমূল্য ১ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

জানা যায়, এবারের নিলামে প্রথমবারের মতো কয়েকটি নতুন জাতের চা সরবরাহ করা হয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ দামে বিক্রি হয়েছে হানি গ্রিন টি।

শ্রীমঙ্গল চা নিলাম ব্যবস্থাপনায় থাকা সংগঠন টি প্লান্টার্স অ্যান্ড ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিপিটিএবি) জানায়, বুধবার (২৩ জুন) এ নিলাম অনুষ্ঠিত হয়।

মৌসুমের চতুর্থ নিলামে দেশের বিভিন্ন স্থানের অর্ধশতাধিক ক্রেতা ও ব্রোকার হাউজ অংশ নেয়। নিলামে বড়লেখা উপজেলার স্কয়ার গ্রুপের প্রতিষ্ঠান শাবাজপুর টি এস্টেটে উৎপাদিত লেমন গ্রিন টি, হানি গ্রিন টি, আর্ল গ্রিন টি ও মাচা গ্রিন টি প্রথমবারের মতো সরবরাহ করা হয়। এর মধ্যে এক কেজি হানি গ্রিন টি সর্বোচ্চ ৩ হাজার ১০০ টাকায় বিক্রি হয়। নিলামে প্রতি কেজি চায়ের সর্বনিম্ন দাম ছিল ১৪৫ টাকা। প্রতি কেজি চয়ের গড় দাম উঠেছিল ১৯০ টাকা পর্যন্ত।

টিপিটিএবির সদস্য সচিব জহর তরফদার বলেন, করোনা মহামারীর কারণে নিলাম কার্যক্রম শুরু করতে এবার কিছুটা দেরি হয়েছে। তবে গত মৌসুমের তুলনায় এবার দুটি নিলাম বেশি অনুষ্ঠিত হবে। চলতি মৌসুমে মোট ২২টি নিলাম অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।