গ্যাস সরবরাহ আরো কমানোর হুমকি পুতিনের

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  11:46 PM, 20 July 2022

ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ আরো কমানোর হুমকি দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ইরানের রাজধানী তেহরানে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লা আলী খামেনি সঙ্গে সাক্ষাৎকালে তিনি এমন হুমকি দেন।

পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাতে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লা আলী খামেনি ন্যাটোকে বিপজ্জনক বলে মন্তব্য করেন। এদিকে, ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত কুর্দি বাহিনীকে নির্মূলের ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়াঁ।

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর পর দ্বিতীয়বারের মতো বিদেশ সফর করছেন রুশ প্রেসিডেন্ট। মঙ্গলবার ইরানের রাজধানী তেহরান পৌঁছান তিনি। সফরে ইরানের প্রেসিডেন্টের পাশাপাশি তুরস্কের রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গেও বৈঠক করেন তিনি।

বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সিরিয়ার তেল চুরির অভিযোগ আনেন রুশ প্রেসিডেন্ট। অবিলম্বে এ চুরি বন্ধের পাশাপাশি আসাদ সরকারের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ওপর জোর দেন তিনি।

সিরিয়া ইস্যু ছাড়াও গুরুত্ব পেয়েছে ইরানের পরমাণু কর্মসূচি এবং ইউক্রেন প্রসঙ্গ। পুতিন বলেন, পশ্চিমাদের নিজ দোষেই ইউরোপীয় গ্রাহকদের কাছে রুশ গ্যাসের প্রবাহ কমে গেছে। ভবিষ্যতে এ সরবরাহ আরো কমতে পারে।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেন, তারা নিজেদের ফাঁদে পড়ছে। রুশ তেলের পরিমাণ সীমিত করা এবং রুশ তেলের দামকে সীমাবদ্ধ করতে এক ধরনের উন্মাদ পরিকল্পনার কথা আমরা শুনছি। একই কথা শোনা যাচ্ছে গ্যাসের ক্ষেত্রেও। শিক্ষিত ব্যক্তিদের কাছ থেকে এ ধরনের কথা শুনতে অবাক লাগে। তাদের এমন আচরণের একটাই ফল, তা হলো বিশ্বে তেলের অপ্রত্যাশিত দাম বৃদ্ধি।

এদিকে, ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তৃর্কি সীমান্ত থেকে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত কুর্দি বাহিনীকে নির্মূলের ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়াঁন।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়াঁন বলেন, যেকোনো সন্ত্রাসী সংগঠনের বিরুদ্ধে তুরস্কের লড়াই অব্যাহত থাকবে। সিরিয়া থেকে সব ধরনের অশুভ শক্তিকে নির্মূল করা হবে। আমাদের কাছে আইএস যেমন, পিকেকে এবং ওয়াইপিজিও তেমন। তারা কোথায় এবং কার সমর্থনপুষ্ট তা আমাদের দেখার বিষয় নয়।

সফরে ইরানের প্রেসিডেন্ট ছাড়াও দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন রুশ প্রেসিডেন্ট। এসময় দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কোন্নয়নের ওপর জোর দেন পুতিন। রাশিয়ার মতোই পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞায় জর্জরিত ইরান।