ওসি রাকিবের তৎপরতায় আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি, জনমনে স্বস্তি।

জয়‌বি‌ডিজয়‌বি‌ডি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:15 PM, 30 December 2020

সারোয়ার হোসেন, রাজশাহীঃ রাজশাহী তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রাকিবুল হাসান রাকিবের তৎপরতায় বেড়েছে আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি। পাশাপাশি বেড়েছে জনসাধারণের মধ্যে স্বস্তি ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আস্থা ভরসা। এতে করে ”পুলিশ জনতা জনতাই পুলিশ” কথাটি বাস্তবে পরিণত হয়েছে।
জানা গেছে, তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রাকিবুল হাসান রাকিব সকাল থেকে ভোর রাত পর্যন্ত থানায় উপস্থিত থেকে উপজেলার আইনশৃংখলা পরিস্থতির সর্বাধিক পর্যালোচনা তদারকি করে যাচ্ছেন। সেই সাথে উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার বিট পুলিশিংয়ের কর্যক্রম প্রতিনিয়ত মনিটরিং করা সহ বিট পুলিশিংয়ের সদস্যদের নিয়ে প্রায় সময় আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ে সভা সমাবেশ করা হচ্ছে।
তানোর পৌর এলাকার বেশকিছু জনসাধারণ বলেন,একসময় তানোর থানা ছিলো মাদকের অভয়ারণ্যে। সন্ধ্যা নামলেই উপজেলার বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে দেশীয় চোলাই মদের ভাগাড় বসতো। আর চুরি ছিনতায়ের ভয়ে কেউ ঠিক মত দুচোখ মেলে বাড়িতে ঘুমাতে পারতোনা। পুলিশ প্রশাসনের তেমন কোন দৌরাত্ম না থাকায় প্রায়দিন রাতে উপজেলার বিভিন্ন বাড়ি থেকে গরু, ছাগল, ভ্যান,সাইকেল, মোটরসাইকেল সহ অস্ত্র ঠেকিয়ে বাড়ির মালামাল লুটপাট করা হলেও পুলিশের তেমন কোন ভূমিকা পালন করতে দেখা যেতোনা।
তবে বর্তমানে পুলিশের সৌজন্যে মূলক কাজকর্ম দেখে অনেকটা জনসচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। যার ফলে উপজেলা জুড়ে অনেকটা বাল্য বিয়ে,মাদক নির্মূল, চুরি ছিনতাই, সাধারণ অপরাধ কমে শুন্যের কোটায় নেমে এসেছে। এতে করে পুলিশের ভুমিকা দেখে উপজেলার জনসাধারণের মধ্যে একপ্রকার সস্তি বিরাজ করছে। যা শুধু একমাত্র তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রাকিবুল হাসান রাকিবের জন্য সম্ভব হয়েছে।
তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রাকিবুল হাসান রাকিব বলেন, আমরা জনগণের টাকায় বেতন পায়, আর যদি তাদের পাশে থেকে তাদের বিপদে আপদে এগিয়ে সেবা না করতে পারি তাহলে সাধারণ জনগণ কার কাছে আইনি সহায়তা পাবে। আমি যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন আমার সর্বচ্চ মেধা যোগ্যতা দিয়ে জনগণের সেবা করে যাবো। শুধু তানোর থানা না আমি যেখানেই থাকবো সেখানেই আমার সর্বচ্চ মেধা যোগ্যতা দিয়ে জনগণের সেবা করে যাবো ইনশাল্লাহ বলে জানান তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :